1. admin@prothombela.com : দৈনিক প্রথমবেলা : আলোচিত সংবাদ
  2. celestakilpatrick37@back.lakemneadows.com : celestaz71 :
  3. hershelteakle@back.lakemneadows.com : clkhershel :
  4. demiusher@bronze.crossandgarlic.com : demiusher355 :
  5. clemmie@solarlamps.store : elliottmidgett3 :
  6. t.ra.nn.go.cl.e.b.m.t@gmail.com : gonzalocotter :
  7. 14@sondat.com.vn : imogenebaumgardn :
  8. 59@sondat.com.vn : jeffreykoch508 :
  9. lateshamcmillen85@basic.poisedtoshrike.com : lateshamcmillen :
  10. lavonnebeauchamp@back.lakemneadows.com : lavonnedrc :
  11. luladudley@why.cowsnbullz.com : luladudley363 :
  12. lynarmour19@zero.hellohappy2.com : lynb67085523 :
  13. ruebenmatthias12@why.cowsnbullz.com : rueben0617 :
  14. shereemokare@why.cowsnbullz.com : shereebdf921 :
  15. mikhailodahrz@mail.ru : taylorlawry51 :
  16. tylerdaily15@basic.poisedtoshrike.com : tylerdaily9 :
শিরোনাম :
সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিমকে বহিস্কার মেহেরপুরের গাংনীতে প্রেমিকের টানে স্বামীকে হত্যা, স্ত্রী আটক সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৭৯ বার পেছাল তালাক দেয়া স্বামীর কাছে ফিরে যেতে সহায়তা চেয়ে গণধর্ষণের শিকার গৃহবধূ লভ্যাংশ ঘোষণা শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের সন্দেহের ভিত্তিতে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে স্ত্রীর হাত-পা বিচ্ছিন্ন করলেন স্বামী চট্টগ্রামে মাদ্রাসার শিশু শিক্ষার্থী ইয়ামিনকে নির্যাতনের বিষয়ে জানতে চায় হাইকোর্ট বৃহস্পতিবার রাজধানীতে যেসব মার্কেট বন্ধ থাকে বাংলাদেশে পাচারের ঘটনা ঘটে তার মধ্যে ২১ শতাংশই নারী বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে সাত

এমসি ছাত্রাবাসে গণধর্ষণ ও ছিনতাই মামলার বিচার একসঙ্গে শুরু!

  • আপডেট টাইম: সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১
  • ২০ বার দেখা হয়েছে

স্বরাষ্ট্র্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পেলেই সিলেটের এমসি ছাত্রাবাসের গণধর্ষণ ও ছিনতাই, চাঁদাবাজির ঘটনার দুই মামলার বিচার একই আদালতে একসঙ্গে শুরু করা হবে। আইনজীবীরা জানিয়েছেন- অনুমতির পত্রটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। সেটি গেজেট হয়ে সিলেটে এলেই দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে দুই মামলা একসঙ্গে চলবে। এ কারণে রবিবার
সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে আসামিদের উপস্থিত করা হলেও মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়নি।

সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছিল গত বছরের ২৫শে সেপ্টেম্বর। এ ঘটনার পর সিলেটে আসামি গ্রেপ্তার ও মামলার দ্রুত বিচারের জন্য আন্দোলন হয়েছিল। আলোচিত এ ঘটনায় মামলা দায়ের করার প্রায় দুই মাস পর তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করেছিল তদন্ত সংস্থা সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ। মামলার তদন্তে পুলিশ দুটি আলাদা অভিযোগে দুটি চার্জশিট দাখিল করে।
বিচারের জন্য গণধর্ষণের মামলাটি প্রেরণ করা হয়েছিল সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ও ছিনতাই এবং চাঁদাবাজির অভিযোগে চার্জশিট প্রেরণ করা হয়েছিল মহানগর দায়রা জজ আদালতে। গত ১৭ই জানুয়ারি সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ধর্ষণের ঘটনায় দায়ের করা মামলাটি চার্জ গঠনের মধ্যে বিচারকাজ শুরু হয়।

কিন্তু মামলার বাদীপক্ষ এক ঘটনায় দুই মামলা পৃথক দুটি আদালতের পরিবর্তে একই আদালতে শুরু করার আর্জি জানান। সেটি সম্ভব না হওয়ার কারণে সিলেটের আদালত সেই আবেদন আমলে নেননি। পরবর্তীতে মামলার বাদীপক্ষ এ নিয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। শুনানি শেষে হাইকোর্টের বেঞ্চ দুই মামলার বিচার একই আদালতে শুরু করার নির্দেশনা দেন।

এদিকে হাইকোর্টের এই আদেশটি সরকারি কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়। সেই আদেশ গেজেট হয়ে ফিরে এলে সিলেটের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে দুই মামলার বিচার একসঙ্গে শুরু করা যাবে বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা। বাদীপক্ষের আইনজীবী এডভোকেট শহীদুজ্জামান চৌধুরী সাংবাদিকদের জানিয়েছেন- নারী নির্যাতন ও ছিনতাই, চাঁদাবাজির মামলাটি একত্রে সিলেটের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে শুরু করার জন্য প্রক্রিয়াধীন আছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত একটি গেজেট হবে। গেজেট হওয়ার পরই মামলার কার্যকারিতা শুরু হয়ে যাবে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল থেকে মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরিত করা হবে বলে জানান তিনি। এদিকে সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পিপি রাশিদা সাইদা খানম জানিয়েছেন- দুই মামলাকে এক মামলা করে বিচার শুরু করতে হলে আবারো চার্জগঠনের মাধ্যমে বিচার শুরু করতে হবে। সব ঘটনাকে একসঙ্গে বিবেচনায় নিয়ে পরবর্তী কার্যক্রম চলবে। আদেশ পাওয়ার পর সিলেটের আদালত এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন বলে জানান তিনি। এদিকে ছিনতাই ও চাঁদাবাজির ঘটনায় দায়ের করা মামলার বিচারিক কার্যক্রম গত ১০ই ফেব্রুয়ারি শুরু করার কথা ছিল বলে জানিয়েছেন বাদীপক্ষের আইনজীবীরা। এ সময় হাইকোর্টে আবেদনের বিষয়টি আদালতকে অবগত করা হলে আদালত সেটির কার্যক্রমও মুলতবি রাখেন সিলেটের মহানগর দায়রা জজ আদালত।

গত বছরের ২৫শে সেপ্টেম্বর সিলেটের এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে স্বামীকে আটকে রেখে গৃহবধূকে দলবেঁধে ধর্ষণ করেছিল ছাত্রলীগের কর্মীরা। এ ঘটনায় তার স্বামী বাদী হয়ে মহানগর পুলিশের শাহপরান থানায় ছয় জনের নাম উল্লেখ করে এবং দুজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে মামলা করেন। ঘটনার পর আসামিরা পালিয়ে গেলেও তিনদিনের মধ্যে ছয় আসামি ও সন্দেহভাজন দুজনকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় পুলিশ ও র‌্যাব। গত ৩রা ডিসেম্বর ছাত্রলীগের আট নেতাকর্মীকে অভিযুক্ত করে মামলার অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা ও মহানগর পুলিশের শাহপরান থানার ওসি (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য। অভিযোগপত্রে সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান ওরফে রনি, তারেকুল ইসলাম ওরফে তারেক, অর্জুন লস্কর, আইনুদ্দিন ওরফে আইনুল ও মিসবাউল ইসলাম ওরফে রাজনকে দলবেঁধে ধর্ষণের জন্য অভিযুক্ত করা হয়। আসামি রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান ওরফে মাসুমকে ধর্ষণে সহায়তা করার জন্য অভিযুক্ত করা হয়। আট আসামিই বর্তমানে কারাগারে আছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 ProthomBela

Site Customized By NewsTech.Com