1. admin@prothombela.com : দৈনিক প্রথমবেলা : দৈনিক প্রথমবেলা
  2. adrianne-vaux@shownewshd.ru : adriannevaux845 :
  3. vanya.sergeesergeev@yandex.ru : Antonylitle :
  4. 65@sondat.com.vn : claudejnj9 :
  5. pravoslvera@rambler.ru : Peterrob :
  6. alhajshahalam99@gmail.com : দৈনিক প্রথমবেলা সত্যে অবিচল দৈনিক : দৈনিক প্রথমবেলা সত্যে অবিচল দৈনিক
  7. selainequinnanai@gmail.com : SamuelVaf : SamuelVafCO SamuelVafCO
  8. viola-chance@shownewshd.ru : violachance8337 :
শিরোনাম :
এমপি শেখ সোহেল ও তার সহধর্মিণীর রোগমুক্তি কামনায় পাইকগাছায় বিভিন্ন মসজিদে এমপি বাবু’র পক্ষ থেকে দোয়া প্রার্থনা সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জে নৌকাসহ ২৫০ কেজি কাঁকড়া জব্দ সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির উদ্যোগে করোনা হেল্প সেন্টারের উদ্বোধন খুলনার ঐতিহ্যবাহী বিএল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সাবেক শিক্ষকের মৃত্যু নাঙ্গলকোট প্রেসক্লাবের উদ্যোগে সহাকারী কমিশনারকে (ভূমি) বিদায় সংবর্ধনা আমবাড়ী হাটে  গরু বহনকারী পিকআপ ভ্যানের সাথে শ্যামলী  কোচের ধাক্কা, গরু ও মানুষ আহত  “বাহাদুর” খুলনাঞ্চলের বৃহত্বম গরু; দাম হেকেছেন ২০ লাখ টাকা দিঘলিয়ায় পুলিশের অভিযানেও মাদক সম্রাটরা থাকছে ধরাছোঁয়ার বাইরে  বছরের শুরুতে কাঁচাপাটের বাজার নিয়ে ষড়যন্ত্র ,পাটের বাজারে হঠাৎ ধস ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের পক্ষে হত দরিদ্রের মাঝে খাদ্য বিতরণ করেন  হাবিব হাসান (এমপি)

বছরের শুরুতে কাঁচাপাটের বাজার নিয়ে ষড়যন্ত্র ,পাটের বাজারে হঠাৎ ধস

  • আপডেট টাইম: শুক্রবার, ১৬ জুলাই, ২০২১
  • ৩৫ বার দেখা হয়েছে
সৈয়দ জাহিদুজ্জামানঃ খুলনা বিভাগে কৃষকেরা গত বছর থেকে পাটের দাম এবং চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় পাট চাষে উৎসাহিত হয়েছে।এবার এঅঞ্চলের কৃষকরা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে পাটের চাষ করেছে।বছরের শুরুতে মূল্যও চলছিল চড়া। কাঁচা পাটের বাজার চলছিল মণ প্রতি ৩-৪হাজার টাকা। কিন্তু হঠাৎ করে কাঁচা পাটের বাজারে ধস নামে চলতি মাসের মাঝা মাঝি থেকে। প্রতি মণ পাটে মূল্য কমে গেছে ১ হাজার থেকে দেড় হাজার টাকা। বছরের শুরুতে পাটের বাজারে এরূপ হটাৎ করে ধস নামায় কৃষক ও কাঁচা পাটের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মাঝে একদিকে হতাশা দেখা দিয়েছে অপর দিকে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। কাঁচা পাটের বাজারে এহেন বড় ধরনের দর পতনকে বিজ্ঞমহল এদেশের কৃষক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অদৃশ্য ও অশুভ ষড়যন্ত্র বলে মনে করছেন। তাঁরা এ প্রতিবেদককে জানান, এ বছরের শুরুতে যখন বাছ পাট বিক্রি হয়েছে ৩ হাজার টাকার উপরে,সেখানে কাঁচা পাটের বাজারে এরূপ হটাৎ করে ধস নামতে পারেনা। কাঁচা পাটের বাজারে এরূপ ধস নেমে আসাকে এদেশের কৃষকদের ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র বলে বিজ্ঞ মহলের কেউ কেউ অভিমত ব্যক্ত করেছেন। এদিকে কাঁচাপাট রপ্তানি নিয়ে আশঙ্কা ব্যক্ত করেছিলেন কাঁচাপাট রপ্তানিকারক ব্যবসায়ি ও সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থা যা নানা গণমাধ্যমে প্রকাশিতও হয়েছিল। এদের প্রতিক্রিয়ায় তারা জানিয়েছিলেন,  বাংলাদেশ থেকে কাঁচাপাট রফতানি দিনদিন কমে যাওয়ায় ব্যবসায়ীমহল উদ্বিগ্ন। ফলে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনও কমছে। অনেকেই ব্যবসা থেকে সরে যাচ্ছেন। করোনার প্রভাবের পাশাপাশি কাঁচাপাট রপ্তানিকারক দেশের চাহিদা অনুযায়ী কাঁচাপাট সরবরাহ না করা এবং দেশের  কারখানাগুলোর  চাহিদা মেটানোর কারণে কাঁচাপাট রফতানি কমে যাচ্ছে।
বাংলাদেশ জুট এসোসিয়েশনের (বিজেএ) তথ্য মতে, ২০০৭-২০০৮  অর্থবছর থেকে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের (এপ্রিল) মধ্যে দেশের কাঁচাপাট রফতানিতে ব্যাপক পতন হয়েছে। রফতানি কমে যাওয়ায় ব্যবসা ছেড়ে দেয়ার পাশাপাশি ব্যাংকের লোন সমন্বয় করতে না পারায় অনেকে জেলে, আবার কেউবা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে জানা গেছে।
বিজেএ’র সূত্র জানায়, এমনও অর্থবছর ছিল যেসময় বাংলাদেশ থেকে ২৮ লাখ বেলের বেশি পাট রফতানি করত ব্যবসায়ীরা। কিন্তু নানা প্রতিকূলতার কারণে পাট রফতানিতে ধস হওয়ায় আশঙ্কাজনকভাবে কমেছে পাট রফতানি। সর্বশেষ অর্থবছরে মাত্র ৫ লাখ বেল কাঁচাপাট রফতানি করেছে।
এদিকে বিশ্বের ৩০টির বেশি দেশে পাট রফতানি হলে সেটি কমে এসেছে মাত্র ১৩টি দেশে। তবে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত এখনও বাংলাদেশ থেকে সর্বোচ্চ পরিমাণ পাট আমদানি করছে।
বাংলাদেশ জুট এ্যাসোসিয়েশন (বিজেএ) পাট ও বস্ত্র  মন্ত্রণালয়ের সচিবের নিকট গত ২৩ মে চিঠি প্রেরণ করেন।  উক্ত চিঠিতে ২০২০-২১ অর্থবছরের এপ্রিল মাস অবধি ৪৬ জন ব্যবসায়ী ৫ লাখ ২ হাজার ৭২১ বেল পাট রফতানি করে বলে জানানো হয়। এ সকল কাঁচাপাট চট্টগ্রাম, বেনাপোল, মোংলা ও বাংলা বান্দা বন্দর থেকে রফতানি হয়েছে। ভারত, পাকিস্তান, চীন, নেপাল, ব্রাজিল, বেলজিয়াম, ভিয়েতনাম, আইভরি কোষ্ট, এলসারভাদর, রাশিয়া, ফিলিপাইন, ইউকে, তিউনিশিয়া, কোরিয়ায় মোট ১৩টি দেশে পাট রফতানি হয়েছে। এর মধ্যে ভারতে রফতানি হয়েছে ১ লাখ ৮৮ হাজার ৩২ বেল এবং পাকিস্তানে ১ লাখ ৪৬ হাজার ৬৪৬ বেল।
 বিজেএ’র খুলনার অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০০৭-২০০৮  অর্থবছরে দেশ থেকে পাট রফতানি হয়েছিল ২৮ লাখ ৭০ হাজার ৯৮৪ বেল। এছাড়া বাংলাদেশ থেকে ৩০-৩৫টি দেশ কাঁচাপাট নিতো এবং ৭০/৮০ জন রফতানিকারক সেই চাহিদা পূরণ করতেন।
খুলনার পিনিতাহ ট্রেড ইন্টারন্যাল কোম্পানির স্বত্বাধিকার ও প্রগতি জুট সাপ্লাইয়ের সিইও এস এম সাইফুল ইসলাম পিয়াস বলেন, করোনার প্রভাবে কাঁচাপাট রফতানি কমেছে। এছাড়া দেশে কাঁচাপাট উৎপাদনও কমে যাওয়ায় পাট রফতানি হ্রাসের প্রধান কারণ। ২০২০-২১ অর্থবছরে যে পাট রফতানি করা হয়েছে তাতে রফতানিকারকরা বেশি লাভ করতে পারেনি। তাছাড়া পাটের দামও ৩শ’ থেকে ৪শ’ টাকা মণ প্রতি বেশি হওয়ায় পাট কিনতে অনীহা ছিল ব্যবসায়ীদের।
তিনি আরও বলেন, দেশেই অনেক কারখানা তৈরি হয়েছে। যার ফলে উৎপাদিত কাঁচাপাটের বড় একটি অংশ দেশের প্রতিষ্ঠানগুলোর চাহিদা মেটানোর কারণেও পাট রফতানি কমেছে। খুলনা ও নারায়ণগঞ্জের কাঁচাপাট ব্যবসায়ীরা আশংকার মধ্যে আছে।
এদিকে খুলনার অনেক মিল মালিক পাটের প্রথম বাজার থেকে সরকারের কম মূল্যের চাপের বাজার থেকে চাহিদার চেয়ে বেশি পাট ক্রয় করে। কাঁচাপাটের মূল্য বাড়ার সাথে সাথে পাট রপ্তানিকারকদের পাশাপাশি,কখনও পাট রপ্তানিকারকদের মাধ্যমে কাঁচাপাট বিক্রি করে দিয়ে পাটের ঘাটতি ও দুর্মূল্যের শ্লোগান তুলে মিল বন্ধ করে করোনার কর্মহীন বেকার শ্রমিকদের কাতারে ঠেলে দিয়ে ত্রিমুখি মুনাফা লুফে নেয় বলে সংশ্লিষ্ট শ্রমিক সূত্রে জানা যায়। এসকল মিল মালিকরা একটি মহলের সাথে গোপন আঁতাত করে একদিকে রপ্তানি বাজার বাধাগ্রস্ত করে কমদামে পাট কিনে এবং কাঁচা পাটের চড়া মূল্য বাজারে পাট গোপনে বিক্রি করে পাটের মূল্য বেড়ে যাওয়ায় মিল বন্ধ করা এহেন ষড়যন্ত্র পর্দার আড়ালে রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট নানা মহল অভিমত ব্যক্ত করেছেন। পাট উৎপাদনকারী কৃষককূল ও কাঁচাপাট ব্যবসায়িমহল হটাৎ কাঁচাপাট বাজারে ধস নামার সঠিক কারণ জানতে চায়। তাঁরা এব্যাপারে সঠিক কারণ অনুসন্ধানের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট সকল মহলের সুদৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।
বাংলাদেশ জুট এ্যাসোসিয়েশনের (বিজেএ) সভাপতি শেখ সৈয়দ আলী জানান, করোনায় কাঁচাপাট ব্যবসায়িদের খুবই খারাপ অবস্থা। সরকার থেকে কোন প্রণোদনাও দেওয়া হয়নি। দিনে দিনে দেশ থেকে কাঁচাপাট রফতানি কমে যাওয়ায় ব্যবসায়ীরা হতাশায় পড়েছে। অনেক ব্যবসায়ীরা ব্যাংক লোন করে সমন্বয় করতে পারেনি এটা সঠিক তবে তাদের তালিকা আমার কাছে নেই। রফতানি কমে যাওয়ায় আয়ও কমছে। ফলে ব্যবসায়িদের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
প্রকাশক কর্তৃক স্যানমিক প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সুত্রাপুর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত। সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ প্রথমবেলা
Site Customized By Rahatit.Com