1. admin@prothombela.com : দৈনিক প্রথমবেলা : দৈনিক প্রথমবেলা
  2. alhajshahalam99@gmail.com : দৈনিক প্রথমবেলা সত্যে অবিচল দৈনিক : দৈনিক প্রথমবেলা সত্যে অবিচল দৈনিক
  3. malloryrozella@kogobee.com : isabellakaestner :
  4. test10725160@mail.imailfree.cc : test10725160 :
  5. test19562429@mail.imailfree.cc : test19562429 :
  6. test19889280@mail.imailfree.cc : test19889280 :
  7. test20508709@mail.imailfree.cc : test20508709 :
  8. test25025655@mail.imailfree.cc : test25025655 :
  9. test25819562@mail.imailfree.cc : test25819562 :
  10. test32665086@mail.imailfree.cc : test32665086 :
  11. test41624736@mail.imailfree.cc : test41624736 :
  12. test42558696@mail.imailfree.cc : test42558696 :
  13. test44762265@mail.imailfree.cc : test44762265 :
  14. test47777647@mail.imailfree.cc : test47777647 :
  15. test48006207@mail.imailfree.cc : test48006207 :
  16. test49178616@mail.imailfree.cc : test49178616 :
  17. darnellstacy@genericimages.com : victorina23w :
  18. eo3f4129m0y@oosln.com : wpuser_cjchkmtgsedd :
  19. nq651l2@1secmail.com : wpuser_fflczbdfjzwd :
  20. 2dvktkldp7@1secmail.org : wpuser_nqcvwedkrkim :
শিরোনাম :
নওগাঁ টিটিসিতে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা দেশকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করে- খাদ্যমন্ত্রী ভালুকায় শিক্ষার গুণগত মানোন্নয়নে মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত- মহান মুক্তিযুদ্ধের বিজয়কে ত্বরান্বিত করেছেন শিল্পী সমাজ – খাদ্যমন্ত্রী ঝিনাইগাতী ইউএনওর মোবাইল নম্বর ক্লোন করে চাঁদা দাবি সাভার পৌর ৮নং ওয়ার্ড কৃষক লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত ধান ক্ষেত থেকে অজ্ঞাত বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার সৈয়দপুরে শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকান্ড জনসম্মুখে তুলে ধরা ও যুদ্ধাপরাধীদের নতুন চক্রান্তের প্রতিবাদে স্থানীয় আ’লীগের জনসভা নওগাঁ রাণীনগরে তাল বীজ রোপণের উদ্বোধন দরিদ্র মানুষের সামাজিক নিরাপত্তা বেড়েছে: খাদ্যমন্ত্রী ভালুকায় জনগণ ও শ্রমিকের কষ্ট লাগবে রাস্তা সংস্কারের উদ্বোধন

আকিজ উদ্দীন ১৬ টাকার পুঁজি নিয়ে গড়েছেন ১২ হাজার কোটি টাকার ইন্ডাস্ট্রি আকিজ গ্রুপ

  • আপডেট টাইম: শনিবার, ৭ আগস্ট, ২০২১
  • ৬৫ বার দেখা হয়েছে
সৈয়দ জাহিদুজ্জামানঃ খুলনার কৃতি সন্তান শেখ আকিজ উদ্দীন ফুলতলার মধ্যডাঙ্গা গ্রামে ১৯২৯ সালে জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর শৈশব কেটেছে কঠিন অভাব অনটনের মধ্যে। তিনি শৈশব কাল থেকেই স্বপ্ন দেখতেন জীবনটাকে ঘেরা দারিদ্রকে জয় করে একদিন অর্থনৈতিকভাবে স্বাভলম্বী হতে। সমাজে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবেন।কিন্তু জীবন সংগ্রামের শুরুতে পদে পদে বাধার মুখে পড়েন। সেই বাধা পেরিয়ে নিজেকে অর্থনীতির উচ্চ শিখরে দাঁড়ানোর শেখ আকিজ উদ্দীনের সম্বল ছিল সাহস, সততা আর কঠোর পরিশ্রম। এই তিনটি জিনিসকে পুঁজি করেই শুরু হয় উদ্যোক্তা আকিজ উদ্দীনের উত্থান পর্ব। মাত্র ১৬ টাকা পুঁজি নিয়ে ১৩ বছর বয়সে কমলালেবুর ফেরিওয়ালা হিসেবে ব্যবসা শুরু করেন। এরপর ১৯৫২ সালে বিড়ির ব্যবসার মধ্য দিয়ে আকিজ উদ্দীনের ব্যবসার সামনে পথ চলা শুরু হয়। একেবারে যাদুর মতো বদলে যেতে থাকে তাঁর জীবন। এরপর থেকেই শুরু হয় আকিজ উদ্দীনের ব্যবসায়িক জীবনের দিন বদলের পালা। দিনে দিনে তিনি দেশের উল্লেখযোগ্য ২৩টি শিল্প-কারখানা প্রতিষ্ঠা করে ব্যবসার যাদুকরে পরিণত হন। যেন হাতে চলে আসে আলাউদ্দিনের চেরাগ।আকিজ গ্রুপ ও আদ্-দ্বীনের প্রতিষ্ঠাতা শেখ আকিজ উদ্দীন জীবন থেকে পাঠ নিয়ে দেশের উন্নয়ন ও অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন।লাখো মানুষের নিয়োগকর্তা হিসেবে উল্লেখযোগ্য কর্মক্ষেত্র সৃষ্টিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন।ব্যবসার শুরুতে তিনি নানাভাবে বাধার মুখে পড়েন। আকিজ উদ্দীনের বাবা শেখ মফিজ উদ্দিন ছিলেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। তিনি খুলনার ফুলতলা থানার মধ্যডাঙ্গা গ্রামে ফল ও ফসলের মৌসুমি ব্যবসা করতেন। আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে মা-বাবার একমাত্র সন্তান হয়েও আকিজ লেখাপড়া করার সুযোগ পাননি। তিনি খুব কাছ থেকে দারিদ্র্যতা উপলব্ধি করতে পেরেছেন।
তিনি তার উপলব্ধিকে জীবনের পুঁজি হিসেবে গভীরভাবে বাবার ব্যবসা পর্যবেক্ষণ করেছেন। স্বপ্ন দেখেছেন নিজেকে প্রতিষ্ঠা করার কিন্তু স্বপ্নের কোনো কিনারা করতে না পেরে ১৯৪২ সালে মাত্র ১৬ টাকা হাতে নিয়ে জীবিকার সন্ধানে কিশোর শেখ আকিজ উদ্দিন খুলনার মধ্যডাঙ্গা গ্রাম ছাড়েন। ট্রেনে চেপে তিনি কলকাতায় যান। কলকাতার শিয়ালদহ রেলস্টেশনের প্ল্যাটফর্মে নামেন।ওখানেই পাইকারি বাজার থেকে কমলালেবু কিনে ফেরি করে বিক্রি করতেন। ঐ রেলস্টেশনের প্লাটফর্মেই তিনি রাত কাটাতেন।কিছু দিন কমলালেবুর ব্যবসা করার পর তিনি একটি ভ্রাম্যমান দোকান দেন  কিন্তু একদিন পুলিশ অবৈধভাবে দোকান দেওয়ার অভিযোগে তাঁকে ধরে নিয়ে যায়। কয়েক দিন জেল খেটে মুক্ত হয়ে আকিজ উদ্দিন কিংকর্তব্যবিমুঢ় হয়ে কলকাতা শহর ঘুরেছেন। কলকাতায় তাঁর সঙ্গে পাকিস্তানের পেশোয়ারের এক ফল ব্যবসায়ীর পরিচয় হয়। আকিজ ওই ব্যবসায়ীর সঙ্গে পেশোয়ারে গিয়ে ফলের ব্যবসা শুরু করেন। দুই বছর ব্যবসা করে তাঁর পুঁজি দাঁড়ায় ১০ হাজার টাকা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় আকিজ বাড়ি ফিরে আসেন। ১৯৫২ সালের দিকে বন্ধুর বাবা বিড়ি ব্যবসায়ী বিধু ভূষণের সহযোগিতায় আকিজ উদ্দিন বিড়ির ব্যবসা শুরু করেন। পাশাপাশি তিনি গ্রামগঞ্জ ঘুরে ধান, পাট, নারকেল ও সুপারি কিনে বিভিন্ন আড়তে বিক্রি করতেন। সামান্য কিছু টাকা জমিয়ে বাড়ির পাশে বেজেরডাঙ্গা রেলস্টেশনের কাছে একটি দোকান দেন। কিন্তু দোকানটি আগুনে পুড়ে যায়। আকিজ সর্বশান্ত হয়ে পড়েন। পরবর্তীতে তিনি এলাকাবাসীর সহযোগিতায় পুনরায় দোকান দেন। পাশাপাশি শুরু করেন ধান, পাট, চাল ও ডালের ব্যবসা। এরপর তিনি সুপারির ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হন। রাত জেগে সেই সুপারি ছিলে দিতেন তাঁর সহধর্মিণী। এই সুপারি তিনি কলকাতায় পাঠাতেন। সুপারির ব্যবসায় তাঁর বেশ লাভ হয়। এরপর তিনি বিধু বিড়ির মালিক বিধু ভূষণের পরামর্শে বিড়ির ব্যবসায় যুক্ত হন। নাভারণের নামকরা ব্যবসায়ী মুজাহার বিশ্বাসের সহযোগিতায় তিনি ছোট্ট একটি বিড়ি তৈরির কারখানা গড়ে তোলেন। শুরু হয় আকিজের উত্থান পর্ব। বিড়ি ফ্যাক্টরির পর ১৯৬০ সালে অভয়নগরে অত্যাধুনিক চামড়ার কারখানা এসএএফ ইন্ডাস্ট্রিজ, ১৯৬৬ সালে ঢাকা টোব্যাকো, ১৯৭৪ সালে আকিজ প্রিন্টিং, ১৯৮০ সালে আকিজ ট্রান্সপোর্ট, নাভারণ প্রিন্টিং, ১৯৮৬ সালে জেস ফার্মাসিউটিক্যাল, ১৯৯২ সালে আকিজ ম্যাচ, ১৯৯৪ সালে আকিজ জুট মিল, ১৯৯৫ সালে আকিজ সিমেন্ট, আকিজ টেক্সটাইল, ১৯৯৬ সালে আকিজ পার্টিকেল, ১৯৯৭ সালে আকিজ হাউজিং, ১৯৯৮ সালে সাভার ইন্ডাস্ট্রিজ, ২০০০ সালে আকিজ ফুড অ্যান্ড বেভারেজ,একই বছর আকিজ অনলাইন, নেবুলা ইন্ক, ২০০১ সালে আকিজ করপোরেশন, আকিজ কম্পিউটার, আকিজ ইনস্টিটিউট অ্যান্ড টেকনোলজি, ২০০৪ সালে আফিল এগ্রো, ২০০৫ সালে আফিল পেপার মিলস প্রতিষ্ঠা করেন।২০০৬ সালের ১০ অক্টোবর মৃত্যুর আগ পর্যন্ত শেখ আকিজ উদ্দিন অসংখ্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে তিনি মেসার্স আকিজ জুট লিঃ নামে পাট গুদাম ও দৌলতপুরে অফিস ছিল। যে অফিসকে কেন্দ্র করে একদিকে কাঁচা পাট অপরদিকে দক্ষিণাঞ্চলে আকিজ বিড়ির সরবরাহকাজ চলত। এ ছাড়া তিনি আদ্-দ্বীন ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠা করে স্বাস্থ্যসেবায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। তাঁর মৃত্যুর পর সন্তানরা আরো অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। আকিজ উদ্দিনের ছেলে স্মৃতিচারণা করে ডাক্তার শেখ মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমার বাবা আমাদের বলতেন, আগুন হয়তো মনের শক্তি দিয়ে হাতে চেপে রাখা যায়। কিন্তু ক্ষমতা ও সম্পদ ধরে রাখা তার চেয়ে আরো অনেক কঠিন।
বাবার এই বাণী ধারণ করে তাঁর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে ব্যবসা-বাণিজ্যের পাশাপাশি সমাজসেবার হাল ধরে রেখেছি।’ অপর ছেলে শেখ বশির উদ্দিন বলেন, ‘বাবার নামাজ-কালামের পরই ছিল ফিন্যানশিয়াল ডিসিপ্লিনের স্থান। এ ছাড়া তাঁর সময়জ্ঞান ছিল উল্লেখ করার মতো। তিনি কোনো মিটিংয়ে এক মিনিট পরে আসেননি। আমি তাঁর এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় দুটি অনুসরণ করে লাভবান হয়েছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর
প্রকাশক কর্তৃক স্যানমিক প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজেস, ৫২/২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সুত্রাপুর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত। সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ প্রথমবেলা
Site Customized By Rahatit.Com